আমি অফট্র্যাকের প্রকাশক : অস্ট্রিক আর্যু

| রবিবার, মার্চ ৫, ২০১৭, ৮:১৭ অপরাহ্ণ

অস্ট্রিক আর্যু। লেখক এবং প্রকাশক। প্রতিষ্ঠা করেছেন প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ‘বাঙলায়ন’। ভিন্নধর্মী বই পড়তে ভালোবাসেন। প্রকাশনার ক্ষেত্রেও এই বিষয়ে প্রাধান্য দেন। প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ‘বাঙলায়ন’ এবং সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বইমেলায় কথা বললেন বাঙালনামা’র সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ওয়ালী উল্লাহ খান।

 

বাঙালনামা ● আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠার ইতিহাস জানতে চাই।

অস্ট্রিক আর্যু ● ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনার প্রতি প্রচুর ঝোঁক ছিলো। লেখালেখিও করতাম। তো বাংলাবাজার থেকে আমার একটা বই বের হলো। ওইখান থেকেই বাংলাবাজারের সাথে যোগাযোগ। আমার বাড়ি যেহেতু পুরানো ঢাকা সেহেতু যোগাযোগটা সহজ ছিলো। এইভাবেই কেমনে যেনো আমার মাথায় আসলো যে আমিও তো একটা প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান করতে পারি। যেহেতু লেখালেখি করতাম সেহেতু আমার একটা আত্মবিশ্বাস ছিলো আমি এইটা ভালো পারবো। ওইভাবেই প্রতিষ্ঠা হলো।

বাঙালনামা ●  এই পর্যন্ত আপনার কতোটা বই প্রকাশিত হয়েছে?

অস্ট্রিক আর্যু ● আমার বইয়ের সংখ্যা প্রায় ৫০ এর উপরে। আমি মূলত শিশু-কিশোরদের উপর বই লিখি।

বাঙালনামা ●  বাঙলায়ন কি বইমেলা কেন্দ্রিক প্রকাশনা?

অস্ট্রিক আর্যু ● না ১২ মাসের । এইটার অবস্থান হচ্ছে বাংলাবাজার। অফিসিয়ালি ২০০৫ সালে শুরু করি।

বাঙালনামা ●  এবার কতোগুলো বই প্রকাশিত হয়েছে?

অস্ট্রিক আর্যু ● এবার আমার প্রতিষ্ঠান থেকে নতুন ১৫টি বই প্রকাশিত হয়েছে। আর পুনঃমুদ্রণ ২টা।

বাঙালনামা ●  বই প্রকাশ করার ক্ষেত্রে কোন ধরণের লেখকদের গুরুত্ব বেশি দেন?

অস্ট্রিক আর্যু ● এককথায় যদি বলি-আমি অফট্র্যাকের প্রকাশক। পপুলার বই যা না। সেই ধরণের বই পড়তেও আমি আগ্রহী এবং প্রকাশ করতেও আগ্রহী।

বাঙালনামা ●  যদি ব্যাখ্যা করতেন…

অস্ট্রিক আর্যু ● আমি মূলত করি ৩ধরণের বই। প্রথমত বাম ঘরণার বই করি। দ্বিতীয়ত ফিলোসপির উপর বই করি। তৃতীয়ত অনুবাদের বই করি।

বাঙালনামা ●  মেলার ব্যবস্থাপনা কেমন দেখছেন?

অস্ট্রিক আর্যু ● মেলার ব্যবস্থাপনা বলতে বাংলা একাডেমির সাথে আমাদের পুস্তক প্রকাশকদের যে সংগঠন আছে দুইটা যৌথভাবে আয়োজন করে। ভালো করার চেষ্টা করেন।

বাঙালনামা ●  প্রতিবারই মেলার আগে বা পরে কিছু বই নিষিদ্ধ করে সরকার। এবারও করেছে। এই বিষয়টা কীভাবে দেখেন?

অস্ট্রিক আর্যু ● পৃথিবীর বিভিন্ন দেশেই বই নিষিদ্ধ করা হয়। এইটা আসলে সরকারের পলিসি। এইটাকে মুক্তচিন্তার হস্তক্ষেপ মনে করি না।

বাঙালনামা ●  বইমেলাকে পৃথক করা নিয়ে একধরণের সমালোচনা আছে। আপনার মতামত কী?

অস্ট্রিক আর্যু ● হ্যাঁ, প্রথমে কিছুটা সমালোচনা ছিলো। কিন্তু পরবর্তীতে এইটা বুঝতে পেরেছে সবাই যে, এইটাই সঠিক সিদ্ধান্ত ছিলো। আগে যেটুকু ছিলো তাতে স্থান সংকুলান হচ্ছিলো না। যার কারণের মূলত সোহরাওয়ার্দীতেও মেলা শুরু হলো। এর বাইরেও বিভিন্ন জায়গার ব্যাপারে আলোচনা হচ্ছিলো। কিন্তু বইমেলাটা আসলে এই জায়গাতেই মানানসই। আমাদের শহীদ মিনারের সাথে সম্পর্কিত ।

বাঙালনামা ● একজন প্রকাশক হিসেবে বর্তমান সাহিত্য চর্চার মান কেমন হয়?

অস্ট্রিক আর্যু ● মান আসলে ওইভাবে বলা যায় না। অনেকে আছেন শখে লেখালেখি করেন। আর আমাদের এখানে তো বইমেলা একটি উৎসবে পরিণত হয়েছে। প্রচুর নতুন লেখকও তৈরি হচ্ছে।

বাঙালনামা ● মেলা কেন্দ্রিক বই বেশি বের হওয়াই প্রকাশের ক্ষেত্রে সৃজনশীলতার কোনো ব্যাঘাত ঘটে বলে কী মনে হয়?

অস্ট্রিক আর্যু ● আসলে যারা বই বের করেন তাদের আগের থেকেই প্রস্তুতি থাকে। খুব বেশি চাপ মনে হয় না।

বাঙালনামা ● বইমেলা কেমন দেখছেন?

অস্ট্রিক আর্যু ● ভালো। ভালোই চলছে। আমার প্রকাশনার ক্ষেত্রেও বলবো ভালো হচ্ছে।

বাঙালনামা ● ধন্যবাদ

অস্ট্রিক আর্যু ● বাঙালনামা –কেও ধন্যবাদ।

Bangalnama/বাঙালনামা/ডব্লিউকে

Please follow and like us:
0