স্ত্রীর পাশে সমাহিত হলেন কুটি মনসুর

| বুধবার, জানুয়ারি ২৫, ২০১৭, ১১:৫৩ অপরাহ্ণ

রঙমহল রিপোর্ট ● চলে গেলেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী, গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক কুটি মনসুর। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। বাংলাদেশের সংগীত জগতের গুণী এ শিল্পীর মৃত্যুতে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর শোক প্রকাশ করেছেন।

কুটি মনসুরের ছেলে খান মোহাম্মদ মজনু জানান, বুধবার ঢাকার দোহারে কুটি মনসুরের শ্বশুরবাড়িতে স্ত্রীর কবরের পাশে তার মরদেহ সমাহিত করা হয়েছে।

মজনু জানান, লোকজ গানের জগতে অন্যতম পুরোধা ব্যক্তি কুটি মনসুর ১৯২৬ সালে ফরিদপুরের চরভদ্রাসন থানার লোহারটেক গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। দীর্ঘ ৬০ বছরের সংগীত জীবনে তিনি পল্লীগীতি, আধুনিক, জারি-সারি, পালাগান, পুঁথিপাঠ, ভাটিয়ালি, মুর্শিদি, মারফতি, আধ্যাত্মিক, দেহতত্ত্ব, হামদ-নাত প্রভৃতি বিষয়ে প্রায় আট হাজার গান লিখেছেন।

সত্তর ও আশির দশকে কুটি মনসুরের গান সারা দেশে তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করে। তার জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে ‘আইলাম আর গেলাম’, ‘যৌবন জোয়ার একবার আসে রে’, ‘আমি কি তোর আপন ছিলাম না রে জরিনা’, ‘কে বলে মানুষ মরে’, ‘হিংসা আর নিন্দা ছাড়ো’, ‘সাদা কাপড় পরলে কিন্তু মনটা সাদা হয় না’ প্রভৃতি। তার কথা ও সুরে গান গেয়েছেন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত কণ্ঠশিল্পীরা। তাদের মধ্যে আছেন সৈয়দ আবদুল হাদী, এন্ড্রু কিশোর, রুনা লায়লা, সাবিনা ইয়াসমিন, নীনা হামিদ, রথীন্দ্রনাথ রায়, ফকির আলমগীর, ইন্দ্রমোহন রাজবংশী, ফিরোজ সাঁই, মুজিব পরদেশী প্কিরণ চন্দ্র রায়, মমতাজ, ডলি সায়ন্তনী, মীনা বড়ুয়া, এম এ মতিন, জানে আলম, রবি চৌধুরী, মনির খান, শুভ্র দেব প্রমুখ।

কুটি মনসুরের ছেলে আরও জানান, শেষ বয়সে তার বাবা কয়েকটি বইও লিখেছেন। যার ভেতরে রয়েছে- ‘আমার বঙ্গবন্ধু, আমার ৭১’। যেটি এবারের বইমেলায় প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে।

Please follow and like us:
0