প্রথমবারের মতো সাফের ফাইনাল খেলার সুযোগ বাংলাদেশের

| সোমবার, জানুয়ারি ২, ২০১৭, ৬:৩৫ অপরাহ্ণ

আগের তিনবার হয়নি। দুবার সেমিফাইনাল থেকে আর একবার বিদায় নিতে হয়েছিল গ্রুপ পর্ব থেকেই। কিন্তু এবার দারুণ সুযোগ মালদ্বীপকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো সাফের ফাইনালে ওঠার। আজ শিলিগুড়ির কাঞ্চনজঙ্ঘায় সেই স্বপ্নপূরণের ম্যাচ। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাতটায়। স্বপ্ন যদি সত্যি হয় তবে পুরুষ-মহিলা ফুটবল মিলিয়ে সাফের ইতিহাসে ১১ বছর পর ফাইনাল খেলবে বাংলাদেশ। শেষবার বাংলাদেশের ছেলেরা ফাইনাল খেলেছিল ২০০৫ সালে। ইসলামাবাদের সেই ফাইনালে দুর্দান্ত খেলেও ভারতের কাছে খোয়াতে হয়েছিল ২ বছর আগে (২০০৩) দেশের মাটিতে জেতা শিরোপা। সেটাই ছিল প্রথম, সেটাই শেষ।

গ্রুপে ভারতের বিপক্ষে নিজেদের উন্নতি দেখাতে চেয়েছিলেন বাংলাদেশের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। তার উন্নতি দেখানোর ম্যাচে ১০০-তে ১০০ পেয়েছেন সাবিনা-কৃষ্ণারা। বিশেষ করে গোলরক্ষক সাবিনা আক্তারকে দক্ষিণ এশিয়ার সেরা গোলরক্ষক বানিয়ে ছেড়েছেন স্থানীয় সাংবাদিকরা। প্রশংসার বানে ভাসাচ্ছেন বাংলাদেশের ডিফেন্ডারদের। তবে সেমিফাইনালের আগে এসব আমলে নিতে চান না বাংলাদেশের মেয়েরা। তারা ভালো করেই জানেন মহিলা ফুটবলে ফাইনালে খেলার সুযোগ হয়নি একবারও। এর আগে দুবার সেমিফাইনাল খেলেছে বাংলাদেশ। দু’বারই সেমিফাইনালে নেপালের কাছে  হেরেছে মেয়েরা।

এবার প্রথমবারের মতো ভারতকে রুখে দিয়ে সেমিতে নেপালকে এড়িয়েছে সাবিনারা। সেমিতে তারা পেয়েছে মালদ্বীপকে। সেমিফাইনালে মালদ্বীপকে তুলনামূলক সহজ প্রতিপক্ষ হিসেবে দেখছেন বাংলাদেশের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। ‘আমাদের সামনে সুযোগ এসেছে ফাইনালে খেলার। সে লক্ষ্য নিয়ে আমি কাজ করছি’- বলেন তিনি। ভারতের ম্যাচের উদাহরণ টেনে ছোটন বলেন, ওই ম্যাচে আমার টার্গেট ছিল ডিফেনসিভ ফুটবল খেলে মাঝে মাঝে কাউন্টার অ্যাটাকে যাওয়ার। মেয়েরা শতভাগ আমার কথা রেখেছে। তবে মালদ্বীপ ম্যাচে আমরা ডিফেনসিভ না, আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলবো। আফগানিস্তানের বিপক্ষে অ্যাটাকিং ফুটবল খেলেই ৬-০ গোলে জিতেছিল বাংলাদেশ। ওই ম্যাচে পাঁচ গোল করেছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক সাবিনা খাতুন। তিনটি গোলের জোগানদাতা ছিলেন কৃষ্ণা রানী।

গত সাফে গ্রুপ পর্বে মালদ্বীপকে ৩-১ গোলে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। ওই ম্যাচেও জোড়া গোল ছিল বাংলাদেশ অধিনায়কের। আন্তর্জাতিক ম্যাচে এখনো মালদ্বীপের কাছে হারেনি বাংলাদেশ মহিলা দল। সেমিফাইনালের আগে অতীত টানতে চান না মালদ্বীপের কোচ নাওকো কাওমাতো। তার মতে, গ্রুপ পর্ব আর সেমিফাইনাল ভিন্ন। সেমিফাইনালে চাপ থাকে। বাংলাদেশ দুইবার সেমিফাইনাল খেলেছে। মালদ্বীপ এবারই প্রথম। আমার দৃষ্টিতে বাংলাদেশই ফেভারিট। আমাদের চেয়ে দলীয় শক্তি ও অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের বেশি। তারপরও আমরা ফাইনালের উদ্দেশ্যেই খেলবো। মালদ্বীপ লীগে খেলা বাংলাদেশ অধিনায়ক সাবিনা খাতুন সম্পর্কে নাওকো বলেন, সাবিনা উঁচুমানের ফুটবলার। ও আমার ঘনিষ্ঠ। প্রায়ই সামাজিকমাধ্যমে তার সঙ্গে ফুটবল নিয়ে আলোচনা হয়। এ ম্যাচে আমার জন্য এটা একটা বাড়তি সুবিধা। সেমিফাইনালের আগে দুই দলের কোনো ইনজুরি বা কার্ড সমস্যা নেই।

এদিকে একই ভেন্যুতে দিনের প্রথম সেমিফাইনালে ‘এ’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন নেপালের মুখোমুখি হবে ‘বি’ গ্রুপ রানার্সআপ স্বাগতিক ভারত। এর আগে সাফের তিন ফাইনালে তিনটিতে খেলেছে এ দু’দল। এবারই প্রথম এ দু’দলের কেউ সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নেবো।

 Bangalnama/বাঙালনামা/এমজে/এসআর
Please follow and like us:
0