বলিউডে আসার সময় ওজন ছিল ৯০ কেজি

| শুক্রবার, ডিসেম্বর ২, ২০১৬, ২:৩০ অপরাহ্ণ

‘দাবাং’ তারকা সোনাক্ষী সিনহা বলিউডে পা রেখেই বাজিমাত করেছিলেন। কিন্তু তাঁর অতিরিক্ত ওজনের কারণে বাঁকা বাঁকা অনেক মন্তব্য শুনতে হয়েছে তাঁকে। তখনই নিজের ওজন কমানো শুরু করেন। সল্লুও তাকে এ কাজে বেশ সাহায্য করেছেন। কিন্তু কীভাবে ওজন কমিয়ে ফিট হলেন, তা জানিয়েছেন সোনাক্ষী।

দাবাং তারকা প্রায় ৩০ কেজি ওজন কমিয়েছেন। এ জন্য দিনে দুই বার জিমে যান। খান প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার। ১৬ বছর বয়স থেকে স্বাস্থ্যের ব্যাপারে সচেতন এই বলিউড তারকা। তাঁর ওজন কমানোটা অন্যের জন্য উৎসাহের ব্যাপার হতে পারে। এ সম্পর্কে সোনাক্ষী সিনহা বলেন, ‘আমি অন্যের অপ্রয়োজনীয় মতামতকে খুব একটা গুরুত্ব দিই না। ওজন বেশি হওয়ায় স্কুলে অনেক বিদ্রূপ করত। বলিউডে আসার সময় ওজন ছিল ৯০ কেজি। তা কমিয়ে ৬০ করেছি।’

২০১০ সালে ‘দাবাং’ ছবির মাধ্যমে সোনাক্ষীর বলিউড অভিষেক হয়। ছবিটিতে সালমান খানের বিপরীতে তাঁর সাবলীল অভিনয় প্রশংসিত হলেও কিছুটা মুটিয়ে যাওয়া শারীরিক অবয়বের কারণে অনেক তির্যক মন্তব্য শুনতে হয় সোনাক্ষীকে। আবার অনেকে অভিযোগ করেন, সোনাক্ষীর শরীর মোটেও বিকিনি পরার উপযোগী নয় বলে প্রয়োজনেও তিনি এ রকম পোশাকের ধারে-কাছে যান না। অনেকের কাছ থেকেই মেদ ঝরিয়ে হালকা-পাতলা হওয়ার পরামর্শ পেয়েছেন সোনাক্ষী। কিন্তু কখনোই তিনি কারও কথায় কান দেননি। বরং শরীরের ওজন সংক্রান্ত প্রশ্ন শুনলেই বেজায় চটে যেতেন। একটা সময়ে এমন মুটিয়ে যাওয়া শারীরিক অবয়বই ছিল সোনাক্ষীর।

এনটিভি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সম্প্রতি দেবাং ভাটকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সোনাক্ষী সিনহা বলেন, চলচ্চিত্রে কাজ করতে গিয়ে আমি দেখেছি, স্বাস্থ্য বেশি ভালো হওয়ায় সমস্যায় পড়তাম। এ কারণে ওজন হারানো শুরু করি। ১৬ বছর বয়সে সিঁড়ি ভাঙানোর সময় আমার কষ্ট হতো। এরপর থেকে আমি অতিরিক্ত ওজন কমানো শুরু করি এবং ফিট হয়ে যাই। দাবাং ছবিতে সই করার পর শুটিং শুরুর আগে সালমান খানের উৎসাহে আমার পরিবর্তন শুরু।

ওই ছবিতে নিজেকে জাহির করতে গিয়েই ৩০ কেজি ওজন কমান ‘ফোর্স ২’ এর তারকা সোনাক্ষী সিনহা। তিনি বলেন, সালমান আমাকে এ ব্যাপারে যথেষ্ট সাহায্য করেছে। আমি নিয়মিত জিমে যাই কি না সে খোঁজও নিয়েছেন সালমান খান।

সোনাক্ষী বড় ভোজন রসিক ছিলেন। কিন্তু খুব দ্রুত ওজন কমাতে গিয়ে তাঁর প্রিয় অনেক খাবার খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দিতে হয়েছে। জিমে যাওয়া একটি অপছন্দের কাজ হলেও করতে হয়েছে। সুষম এবং উচ্চ প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার খেয়ে নিজেকে ফিট রেখেছেন সোনাক্ষী। দিনে দুবার জিমে যান সোনাক্ষী সিনহা। অন্তত দুই ঘণ্টা সেখানেই কাটান তিনি। প্রশিক্ষণের পাশাপাশি যোগব্যায়ামও করেন।

বিখ্যাত ফিটনেস প্রশিক্ষকের ইয়াসমিন কারাচিওয়ালার তত্ত্বাবধানে ছিলেন সোনাক্ষী। নিজেকে ফিট রাখতে সন্ধ্যা ৬টার পর খাওয়া এড়িয়ে চলতেন। সকালে ও দুপুরের খাবারের তালিকায় ছিল গম শস্য, তাজা ফল, সবজি ও ডাল। মাছ, মুরগির মাংস বা ডিমের সাদা অংশ রাতের খাদ্যতালিকায়।

Bangalnama/বাঙালনামা/পিএ /এসএ

Please follow and like us:
0